Ads

Desk

এক বছরে সীমান্ত হত্যা বেড়েছে ১২ গুণ

নানা প্রতিশ্রুতির পরও সীমান্ত হত্যা কমছে না। আর গত তিন বছরের হি বিস্তারিত…

গ্রেফতারকৃত ধর্ষককে নিয়ে কেন এত বিতর্ক?

  • Jan 9, 2020

ঢাকার কুর্মিটোলায় রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় বিস্তারিত…

ধর্ষক গ্রেফতার নাটক, আসল রহস্য কি?

  • Jan 9, 2020

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

সম্প্রতি রাজধানীর কুর্মিটোলা এলাকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী ধর্ষণে শিকার হয়েছে। বিস্তারিত…

সোলেইমানি হত্যার প্রতিশোধ শুরু, মার্কিন ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিল ইরান!

  • Jan 8, 2020

ইরাকে অবস্থিত দুইটি মার্কিন বিমান ঘাটিতে ১২টির বেশি ব্যালেস্টিক মিসাইল হামলা হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দপ্তর। বিস্তারিত…

বিএনপি প্রার্থীদের গ্রেফতার-অপহরণ করে লেভেল ফিল্ড তৈরি করছে সরকার!

  • Jan 7, 2020

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। বিস্তারিত…

ফিরছেন অভিযুক্তরা,ক্যাসিনো অভিযান কি আ.লীগ বনাম আমলাদের দ্বন্দ্বের ফল?

  • Jan 6, 2020

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়া নিজ দলের চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ, খুনি, সন্ত্রাসী, ধর্ষক, চোরাকারবারি, মাদকাসক্ত ও মাদক ব্যবসায়ীদেরকে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনতে রাজধানীসহ সারাদেশে শুদ্ধি অভিযান চালিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি বিস্তারিত…

আবারো ফতোয়ার ঝুলি নিয়ে মাঠে নেমেছে কওমী আলেমরা!

  • Jan 6, 2020

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

দীর্ঘদিন পর আবারো ফতোয়ার ঝুলি নিয়ে মাঠে নেমেছেন কওমী মাদরাসার আলেমরা বিস্তারিত…

বিতর্কিত নির্বাচনের পাঁচ বছর: রাজনৈতিক ইতিহাসে কলঙ্কিত দিন!

  • Jan 5, 2020

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন দাবি করে আজ ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস বিস্তারিত…

কে এই কিংবদন্তি বীর জেনারেল কাশেম সোলাইমানি?

  • Jan 4, 2020

জেনারেল কাশেম সোলাইমানি শুধু ইরানের নয়, পুরো আরব বিশ্বের বীর হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ক্যারিশম্যাটিক কমান্ডার হিসেবে সারা পৃথিবীতে পরিচিতি পেয়েছিলেন। তার বুদ্ধি-সাহস, নেতৃত্বের গুণাবলী ও যুদ্ধক্ষেত্রের বিচক্ষণতার গল্প ছিলো মানুষের মুখে মুখে।

পৃথিবীর ‘এক নম্বর’ জেনারেল হিসেবে বিবেচিত সোলাইমানির নাম ছিলো বিশ্বের সবচেয়ে দক্ষ গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ ও মোসাদের হিট লিস্টের ‘এক নম্বরে’। শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে মার্কিন বাহিনী দ্বারা হত্যাকাণ্ডের শিকার হন তিনি।

কাশেম সোলাইমানি মূলত সিরিয়া ও ইরাক যুদ্ধে তার বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য দেশ-বিদেশে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। সেসময় তিনি ‘সারুল্লাহ’ গ্রুপের নেতৃত্ব দেন। ওই যুদ্ধে তার অবদানের প্রশংসা করেছিলেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ।

তেহরানের আঞ্চলিক শত্রু সৌদি আরব ও ইসরাইলের মাথাব্যথার কারণ ছিলেন কাশেম সোলাইমানি। ইরান-ইরাক যুদ্ধের সময় তার বীরত্বপূর্ণ অবদান সবার নজরে আসে। গত ২০ বছরে বহুবার যুক্তরাষ্ট্র, ইসরাইল ও আরবের বিভিন্ন সংগঠন তাকে হত্যার চেষ্টা চালায়। তবে, প্রতিবারই তিনি প্রাণে বেঁচে যান।

২০১১ সালে গৃহযুদ্ধের কারণে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ বারবার পরাজয়ের মুখে পড়লে, তার সমর্থনে এবং ইরানের বাইরে অভিযানের দায়িত্ব নেয় কাশেম সোলাইমানির কুদস বাহিনী। দায়িত্ব নিয়েই তিনি সফলভাবে বিভিন্ন সন্ত্রাসী সংগঠন ও ইরাকের ইসলামিক স্টেটকে (আইএস) পরাজিত করেন।

কাশেম সোলাইমানি ইরানের পূর্ব সীমান্তে মাদক চোরাচালান ও সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেন। সেখানেও সফল ছিলেন তিনি। ওই এলাকার সন্ত্রাসীদের দমন করেন এবং সেখানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনেন।

১৯৯৮ সালে কাশেম সোলাইমানি কুদস বাহিনীর প্রধান নিযুক্ত হন। এসময় তিনি লেবাননের হিজবুল্লাহর সঙ্গে ইরানের দীর্ঘদিনের বৈরি সম্পর্কের ইতি ঘটান এবং হিজবুল্লাহর সঙ্গে ইরানের একটি সুসম্পর্ক গড়ে তোলেন। একইসঙ্গে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ এবং ইরাকের শিয়া মিলিশিয়াদের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখেন। তিনি জেনারেল পদে উন্নীত হন ২০১১ সালের ২৪ জানুয়ারি।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি এবং শিয়া নেতাদের সংস্পর্শে থাকার কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তিনি বেশি আলোচনায় ছিলেন।

কাশেম সোলাইমানির নেতৃত্বে কুদস বাহিনী ইরানের সীমানা ছাড়িয়ে বিশ্বব্যাপী এর সক্ষমতা বিস্তৃত করে গোয়েন্দা, সামরিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলেছিলো।

দক্ষিণ ইরানের কারমান প্রদেশের একটি দরিদ্র পরিবার থেকে উঠে এসেছিলেন জেনারেল কাশেম সোলাইমানি। তিনি ১৩ বছর বয়স থেকেই নিজের পরিবারের জন্য কাজ শুরু করেছিলেন। তিনি ভারোত্তোলনের প্রতি আগ্রহী ছিলেন এবং অবসরে খামেনির খুতবা শুনতে যেতেন।

ফরেন পলিসি ম্যাগাজিনের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৭৯ সালের ইসলামী বিপ্লবের সময় তিনি ইরানি সেনাবাহিনীর নজরে আসেন। তখন ইরানের পশ্চিম আজারবাইজান রাজ্যে সেনাবাহিনীর কাছ থেকে ছয় মাসের সামরিক প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন।

ইরান-ইরাক যুদ্ধের সময় তার নেতৃত্বে ইরাকের সীমান্ত পেরিয়ে অভিযান পরিচালিত হয়। তখন থেকেই তিনি ইরানের জাতীয় বীর হিসেবে বিবেচিত হন।

২০০৫ সালে ইরাকে পুনরায় সরকার প্রতিষ্ঠিত হলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইব্রাহিম আল-জাফারি ও নুরি আল-মালিকির নেতৃত্বে ইরাকের রাজনীতিতে কাশেম সোলাইমানির প্রভাব বাড়তে থাকে।

সেই সময়ে দেশটির শিয়া রাজনৈতিক দল এবং আধাসামরিক বাহিনী ‘বদর’ ইরাকের একটি প্রধান শক্তিতে পরিণত হয়। দেশটির স্বরাষ্ট্র ও পরিবহন মন্ত্রণালয় এই সশস্ত্র গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণে আসার পরে সেখানে তাদের প্রভাব গড়ে ওঠে। এই সংগঠনটিকে ইরাকে ‘ইরানের পুরনো’ সংগঠন হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়।

২০১১ সালে সিরিয়াতে গৃহযুদ্ধ শুরু হলে প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে রক্ষায় কাশেম সোলাইমানি তার নিয়ন্ত্রিত ইরাকি মিলিশিয়াদের সিরিয়া যাওয়ার নির্দেশ দেন।

ইরাকের সুন্নি বিদ্রোহী গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট অব দ্য ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্টের (এসআইএসএল) বিরুদ্ধে ইরান সমর্থিত হাশদ আল-শাবীর (পপুলার মবিলাইজেশন ফোর্সেস) যুদ্ধ চলাকালে কয়েকটি ইউনিটের নিয়ন্ত্রণ ছিলো কাশেম সোলাইমানির হাতে। তার নিয়ন্ত্রণে হাশদ আল-শাবীর ইরাকি সেনাবাহিনীর সঙ্গে লড়াই করেছিলো এবং সশস্ত্র সংগঠনগুলোকে পরাজিত করেছিলো।

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের আমেরিকান স্টাডিজের প্রধান মোহাম্মদ মারান্দি বলেছেন, “আইএসআইএলকে পরাজিত করতে কাশেম সোলাইমানি মূল ভূমিকা পালন করেন। আর এজন্য তিনি ইরানি জনগণ ও মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য দেশের কাছে ‘জাতীয় বীর’ খেতাব পেয়েছিলেন।”

তিনি আরও বলেন, “কাশেম সোলাইমানি না থাকলে মধ্যপ্রাচ্যের এই অঞ্চলজুড়ে হয়তো কালো পতাকা উড়তে দেখতো বিশ্ব।”

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি একবার জেনারেল কাশেম সোলাইমানিকে ‘ইরানি বিপ্লবের জীবন্ত কিংবদন্তি’ হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন।

সূত্র:দ্য ডেইলি স্টার

এত লুটপাটের পরও মুস্তফা কামাল বিশ্বের সেরা অর্থমন্ত্রী!

  • Jan 4, 2020

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

দেশে উন্নয়নের কতগুলো বেলুন ফুলিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিস্তারিত…

কেমন ছিল ২০১৯-এ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস!

  • Jan 2, 2020

প্রায় তিন দশক পর সচল হল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু), আর এই বছরই ছাত্র আন্দোলনে অস্থির ছিল বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অনিয়ম, দুর্নীতি ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগে তুমুল আন্দোলনের মুখে পদ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক খোন্দকার নাসিরউদ্দিন। ছাত্রলীগ নেতাদের ‘কোটি টাকা চাঁদার ব্যবস্থা’ করে দেওয়ার অভিযোগে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন চলছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধেও।

ছাত্র আন্দোলন ও ক্যাম্পাসে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় এবং বেসরকারি আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ আরও কিছু উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। এদিকে শিবির সন্দেহে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে হত্যার পর বিচার চেয়ে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে এলে সেখানে তৈরি হয় অচলাবস্থা। আন্দোলনের মধ্যে বেরিয়ে আসে বিভিন্ন ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনা। নির্মম ওই হত্যাকাণ্ডের পর ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধসহ বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয় দেশের প্রধান প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়টি।

২৮ বছরের বেশি সময় বন্ধ থাকার পর গত ১১ মার্চ ডাকসু ও ১৮টি হল সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ভোটের ফলে ডাকসুতে মোট ২৫টি পদের মধ্যে জিএস-এজিএসসহ ২৩টি পদে জিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় সরকার সমর্থক ছাত্রলীগ। তবে ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদকের পদে জিতে যান সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের দাবিতে আন্দোলনের নেতৃত্ব দেওয়া বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের দুই নেতা।

গত ২৩ মার্চ ডাকসুর নতুন পর্ষদের প্রথম সভা চলার সময় ডাকসু ভবনের বাইরে পুনর্নির্বাচনের দাবিতে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হলে ভোট শুরুর আগে ভোটের চিহ্নসহ বস্তাভর্তি ব্যালট উদ্ধার এবং আরেক হলে ভোটগ্রহণ কক্ষের পেছনে আরেকটি কক্ষ থেকে ব্যালট পেপার বোঝাই ট্রাংক পাওয়ার ঘটনা ব্যাপক অসন্তোষ তৈরি করে। এরমধ্যে বিভিন্ন হলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সাধারণ ছাত্রদের ভোট দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ আসে।

প্রশ্নবিদ্ধ ওই ভোটেও ভিপি পদে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের পরাজয়ে ফল ঘোষণা কক্ষেই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখা দেয়। পরেও এ নিয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন ছাত্রলীগের একাংশের নেতারা। অন্যদিকে ডাকসু ভোট বাতিল করে নতুন নির্বাচনের দাবিতে ধারাবাহিকভাবে কর্মসূচি পালিত হতে থাকে। সুষ্ঠু ভোটের দাবিতে অনশনেও বসেন শিক্ষার্থীরা, অনিয়ম খতিয়ে দেখা ও দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার আশ্বাসে এই কর্মসূচি থেকে সরে আসেন তারা।

বছরের শেষ দিকে ডাকসু ভবনে ঢুকে ভিপি নুরুল হক নূর ও তার সঙ্গীদের উপর হামলা ব্যাপক সমালোচনা তৈরি করে। হামলার জন্য মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামে একটি সংগঠনের পাশাপাশি ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মীকেও দায়ী করা হচ্ছে। ডাকসু ভবনের মধ্যে ভিপির উপর এই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতারাও। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, হামলাকারী যেই হোক, কোনো ছাড় পাবে না।

বিদায়ী বছরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে অচলাবস্থার মধ্যে পড়তে হয় বেশ কিছু সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে। আন্দোলনের মুখে উপাচার্যের পদ ছাড়া অধ্যাপক খোন্দকার নাসিরউদ্দিনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধান করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। জাহাঙ্গীরনগরের উপাচার্য ফারজানা ইসলামও আছেন আলোচনায়।

এর মধ্যে ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে উপাচার্যদের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) বলেছে, “বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে উপাচার্যরা নিজেদের মেধা, জ্ঞান ও প্রজ্ঞা দিয়ে তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব ও কর্তব্য প্রতিপালন করে যাচ্ছেন। তবুও নানা কারণে কোনো কোনো ক্ষেত্রে নিয়ম-নীতি অনুসরণে শিথিলতা দেখা যাচ্ছে। এসব কারণে উচ্চশিক্ষা প্রশাসনে সৃষ্টি হচ্ছে বিশৃঙ্খলা, যা কাম্য নয়।”

সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান কাজী শহীদুল্লাহ ‍বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সরকারি-বেসরকারি সব বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছু সমস্যা উদ্ভূত হয়। সেগুলো আমরা সমাধানের চেষ্টা চালাই। সমাধানের পর দেখা যায়, নতুন জায়গায় নতুন সমস্যা তৈরি হচ্ছে। এটা এক ধরনের চলমান প্রক্রিয়া।”

উপাচার্যদের বিতর্কের মুখে পড়ার বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “উপাচার্যদের কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হয় সব সময়। নিয়োগ নিয়ে দ্বন্দ্ব, স্থানীয় রাজনীতির প্রভাব এবং নিজেদের দলের মধ্যে স্বার্থের সংঘাতের ফলে তারা এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হন। এসব বিষয় মোকাবেলা করেই তাদের চলতে হবে। কিন্তু অনেক সময় তারা সেটি করতে পারেন না।”

প্রায় তিন দশক পর অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্যানেল বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতা নুরুল হক নূর ভিপি নির্বাচিত হন, সমাজসেবা সম্পাদক পদেও জয়ী হন একই প্যানেলের আখতার হোসেন। শিক্ষার্থীদের পরিবহন, সাংস্কৃতিক আয়োজন, নারী শিক্ষার্থীদের জন্য স্যানিটারি ন্যাপকিনের ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন ইতিবাচক কর্মকাণ্ডের জন্য প্রশংসিত ডাকসু বিতর্কে ছিল নেতাদের কিছু কর্মকাণ্ডে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে চাঁদা দাবির খবর চাউর হওয়ার পর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় গোলাম রাব্বানীকে, যিনি ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক। তার সঙ্গে একই অভিযোগে পদ হারান ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, ডাকসুর সহ-সভাপতি পদে নির্বাচন করে যিনি হেরেছিলেন। ডাকসু সচলের আট মাসের মাথায় টেন্ডারবাজির অভিযোগ ওঠে ভিপি নুরুল হক নূরের বিরুদ্ধে। সংবাদ সম্মেলন করে তার পদত্যাগ দাবি করেন চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠার পর পদ হারানো জিএস রাব্বানীও। ডাকসুতে সংখ্যাগরিষ্ঠ ছাত্রলীগের সঙ্গে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীদের দুই নেতার সমন্বয়হীনতা বছরজুড়ে দৃশ্যমান হয়।

ডাকসুর এজিএস ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ডাকসুর রাজনৈতিক অর্জন হচ্ছে গণতান্ত্রিক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা। সেটি আমরা পেরেছি। এতদিন ছাত্রনেতারা ছিল যারা শিক্ষার্থীদের কাছে কেউ জবাবদিহি করেন নাই। ডাকসুর ফলে আমরা জবাবদিহিমূলক ছাত্রনেতা পেয়েছি। এছাড়া আমরা ডাকসুর মাধ্যমের ক্যাম্পাসে ধর্মভিত্তিক ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করতে পেরেছি এবং গঠনতান্ত্রিকভাবে নিষিদ্ধ করার প্রক্রিয়ার মধ্যে আছি।”

ডাকসু ভবনে নতুন পর্ষদের প্রথম সভায় (বাঁ থেকে) এজিএস সাদ্দাম হোসেন, জিএস গোলাম রাব্বানী, সভাপতি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান ও ভিপি নূরুল হক নূর। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভিডাকসু ভবনে নতুন পর্ষদের প্রথম সভায় (বাঁ থেকে) এজিএস সাদ্দাম হোসেন, জিএস গোলাম রাব্বানী, সভাপতি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান ও ভিপি নূরুল হক নূর। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভিডাকসুর অর্জনের বিষয়ে তিনি বলেন, “শিক্ষার্থীদের অধিকার অর্জনের দিক দিয়ে আমরা ইতোমধ্যেই অনেক কাজ করেছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৫টির মতো বিভাগের উন্নয়ন ফি প্রত্যাহার কিংবা কমানো, লাইব্রেরির সময়সীমা বৃদ্ধি, বাস ট্রিপের সংখ্যা বৃদ্ধি, সুইমিং পুলের সময় বৃদ্ধি, প্রথমবারের মতো জোবাইক চালু, ডাকসুর তৎপরতায় শিক্ষা কার্যক্রমকে অনলাইন সিস্টেমে নিয়ে যাওয়ার তাগিদ দেওয়া হচ্ছে, মেয়েদের জন্য স্যানিটারি ন্যাপকিন ভেন্ডিং মেশিন চালু করা হয়েছে, নানা রকম ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন, তরুণ লেখক সাহিত্যিকদের প্ল্যাটফর্মে আনা হয়েছে, ডাকসুর উদ্যোগে বইমেলার আয়োজন করা হয়েছে, প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য বিভিন্ন একাডেমিক ও আবাসিক ভবনগুলোতে প্রবেশপথ তৈরি করা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের আবাসন সংঙ্কট দূর করার জন্য বাঙ্ক বেডের কথা বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের জন্য স্বাস্থ্যবীমা চালুর জন্য প্রশাসনকে তাগাদা দেওয়া হয়েছে।” বিশ্ববিদ্যালয়ে সান্ধ্য কোর্স বাতিলের জন্য ডাকসুর পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন সাদ্দাম।

তবে কিছু কার্যক্রম চললেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের হাতে শিক্ষার্থী নির্যাতন ও ক্যাম্পাসে ’অলিখিত দাসত্ব’ বন্ধ করা সম্ভব হয়নি বলে জানান ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নূর। তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “মোটা দাগে যে কাজগুলো করা আমাদের উচিত ছিল সেগুলো হয়ত আমরা করতে পারিনি। বিশেষ করে, ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের দ্বারা শিক্ষার্থীরা যে হলে হলে নির্যাতিত হয় এবং হলগুলোতে শিক্ষার্থীদের যে একটা অলিখিত দাসত্বের বিনিময়ে থাকা অর্থাৎ প্রোগ্রামের বিনিময়ে থাকা- এটার আমরা এই নয় মাসেও পরিবর্তন করতে পারিনি।” এজন্য প্রশাসন ও সংখ্যাগরিষ্ঠ ছাত্রলীগ সমর্থিত ডাকসুর নেতাদের দায়ী করেন নূর।

ডাকসুর কার্যক্রম নিয়ে তিনি বলেন, “সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের নিয়ে ডাকসুর বিভিন্ন সম্পাদকের সমন্বয়ে অনেক কাজ হয়েছে। সেই তুলনায় হল সংসদগুলো ওইভাবে কাজ করতে পারেনি।” কাজের ক্ষেত্রে তার সঙ্গে ছাত্রলীগ সমর্থিত অন্য নেতাদের সমন্বয়হীনতার অভিযোগ করেন ভিপি নূর। তিনি বলেন, “যেহেতু ছাত্রলীগ এখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ, তাই তারা চাইলেই আমাকে এবং সমাজসেবা সম্পাদককে বাদ দিয়ে অনেক সিদ্ধান্ত নিতে পারে এবং সেইটাই তারা করে। দেখা যায় যে, অনেক কিছুই আমাকে না জানিয়ে তারা কাজ করে আবার ডাকসুর অনেক প্রোগ্রামে আমাকে ইনভাইট পর্যন্ত করা হয় না। এই সমন্বয়হীনতা দূর করার জন্য আমরা প্রশাসনের বা ডাকসুতে যারা শিক্ষক আছে তাদেরকে আমরা একাধিকবার বলেছিলাম। কিন্তু তারপরও প্রতিকার পাইনি।”

আবরার হত্যার পর উত্তাল বুয়েট
বুয়েটের শেরেবাংলা হলে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের নির্যাতনে গত ৬ অক্টোবর তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরারের মৃত্যু হলে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে অচল হয়ে পড়ে বুয়েট। তাদের দাবি মেনে বুয়েট কর্তৃপক্ষ সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করে; পাশাপাশি নেওয়া হয় আরও কিছু উদ্যোগ। প্রাথমিকভাবে শিক্ষার্থীদের ১০ দফার কয়েকটি মেনে নেওয়ার পর গত ১৬ অক্টোবর মাঠের আন্দোলন থেকে সরে আসে বুয়েট শিক্ষার্থীরা; তবে মামলার অভিযোগপত্র ও অন্য দাবিগুলো পূরণ না হওয়া পর্যন্ত ক্লাসে না ফেরার ঘোষণা দেয়।

পাঁচ সপ্তাহের তদন্ত শেষে গত ১৩ নভেম্বর ২৫ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে ২১ নভেম্বর আবরার হত্যার অভিযোগপত্রভুক্ত ২৫ জনসহ ২৬ জনকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করে বুয়েট প্রশাসন। পাশাপাশি বিভিন্ন সময় র‌্যাগিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে এ পর্যন্ত ৪০ শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আন্দোলনে অচল হওয়ার কারণে ১৯ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় বুয়েটের টার্ম ফাইনাল পরীক্ষা স্থগিত হয়ে যায়। শিক্ষার্থীরা আন্দোলন সমাপ্তির ঘোষণা দিলে ২৮ ডিসেম্বর থেকে ওই পরীক্ষার সূচি দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
উপাচার্যের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। এক মাস পর বিশ্ববিদ্যালয়টি খুললেও দুর্নীতির অভিযোগের সুরাহা হয়নি এখনও। বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকার প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তের দাবিতে গত অগাস্টে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একটি অংশ।

এর মধ্যেই ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের কাছে চাঁদা চাওয়ার অভিযোগ ওঠে। ওই ঘটনার পরে ছাত্রলীগের দুই শীর্ষ নেতাকে পদ হারাতে হলেও তারা অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো অধ্যাপক ফারজানার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন।

উপাচার্য ফারজানা ইসলামের পদত্যাগ দাবিতে উত্তাল ছিল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসউপাচার্য ফারজানা ইসলামের পদত্যাগ দাবিতে উত্তাল ছিল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসউপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতাদের অর্থ দিয়েছেন বলে সে সময় অভিযোগ ওঠে, যার একটি অডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতা ‘ঈদ সালামী’ হিসেবে ১ কোটি টাকা পাওয়ার কথা স্বীকারও করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে উপাচার্যের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে তার তদন্তের দাবিতে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলন চালিয়ে আসছিল শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

চাপের মুখে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসলেও তা ফলপ্রসূ না হওয়ায় গত ১৯ সেপ্টেম্বর তার পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন শুরু হয়। ধর্মঘট, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন, প্রশাসনিক ভবন অবরোধের মত বেশ কিছু কর্মসূচি শেষে ৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করেন আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। পরদিন দুপুরে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা মিছিল নিয়ে চড়াও হয় আন্দোলনকারীদের ওপর। তারা এলোপাতাড়ি মারধর করে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। উপাচার্যের বাসভবনের সামনে ওই হামলায় আট শিক্ষক ও সাংবাদিকসহ অন্তত ২৫ জন আহত হন।

এই পরিস্থিতিতে ৫ নভেম্বর দুপুরে সিন্ডিকেটের জরুরি বৈঠক ডেকে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তারপরও শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে প্রতিবাদী চিত্রাঙ্কন ও কনসার্টের মত কর্মসূচি চালিয়ে যায়। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তখন পুলিশ ডেকে হল খালি করার ঘোষণা দেয়। পাশাপাশি ক্যাম্পাসে সব ধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে ৮ ডিসেম্বর থেকে ক্যাম্পাস খুলে দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়
সাধারণ শিক্ষার্থীদের টানা ১২ দিনের আন্দোলনের মুখে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক খোন্দকার নাসিরউদ্দিন।
শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে উপাচার্যের পদ ছাড়তে বাধ্য হন অধ্যাপক খোন্দকার নাসিরউদ্দিনশিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে উপাচার্যের পদ ছাড়তে বাধ্য হন অধ্যাপক খোন্দকার নাসিরউদ্দিন

গত ১১ সেপ্টেম্বর আইন বিভাগের ছাত্রী ও ক্যাম্পাস সাংবাদিক ফাতেমা-তুজ জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এক ফেইসবুক পোস্টের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কক্ষে জিনিয়াকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও তাকে বহিষ্কারের ঘটনাটি গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন উপাচার্য নাসিরউদ্দিন।

দেশব্যাপী ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে ১৮ সেপ্টেম্বর প্রশাসন জিনিয়ার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হয়। এরপরও উপাচার্যের অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, স্বজনপ্রীতি, নারী কেলেঙ্কারিসহ নানা অভিযোগে ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে ভিসি পতনের আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এর মধ্যে গত ২১ সেপ্টেম্বর উপাচার্যের লোকজন আন্দোলনকারীদের উপর হামলা চালালে আন্দোলন আরও প্রচণ্ড হয়ে ওঠে। এরপর ওই ঘটনা তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে। ২৫ ও ২৬ সেপ্টেম্বর গিয়ে সরেজমিন অনুসন্ধান করে প্রতিবেদন দেয় ওই তদন্ত কমিটি। তাদের প্রতিবেদনে উপাচার্যকে অপসারণের সুপারিশের পর ৩০ সেপ্টেম্বর পদ ছাড়েন উপাচার্য নাসির।

আরও যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন
উপাচার্য ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের পদত্যাগের এক দফা দাবিতে নভেম্বরের শুরুতে আন্দোলনে নামেন পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা। একই সময়ে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তিন দফা দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ করেন। প্রথম বর্ষে ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের হলে অবস্থান, সাধারণ শিক্ষার্থীদের হয়রানি না করা এবং বিতর্কিত শিক্ষক-কর্মকর্তাদের পরীক্ষার সঙ্গে জড়িত না রাখার দাবিতে আন্দোলনে নামে তারা।

আন্দোলনের মুখে পদ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন ঢাকার আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যওআন্দোলনের মুখে পদ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন ঢাকার আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যওশিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে অক্টোবরের শেষে পদত্যাগ করেন বেসরকারি আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক কাজী শরিফুল আলম।

দুই দল শিক্ষার্থীর সংঘর্ষের কারণে টানা ১৫ দিন বন্ধ ছিল খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট)। গত ১ নভেম্বর বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে আন্তঃহল ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে দুই হলের ছাত্রদের মধ্যে সংঘর্ষের পর অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছিল কর্তৃপক্ষ। এরপর ১৭ নভেম্বর থেকে পুনরায় ক্লাস পরীক্ষা শুরু হয় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ওই প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে।

ভিপি নুর এখন শেখ হাসিনার জন্য হুমকি!

  • Dec 30, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

দেশের সকল সুশীল ও রাজনীতিবিদদেরকে ছাপিয়ে আলোচনার কেন্দ্রে অবস্থান করছেন ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর। কোটা সংস্কার আন্দোলন থেকেই মূলত ভিপি নুরের উত্থান। সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবি করতে গিয়ে শেখ হাসিনার ক্ষমতার মসনদ কাপিয়ে দিয়েছিল ভিপি নুর। সেই আন্দোলনের উত্তাল দিনগুলোতে এমনও সময় গেছে শেখ হাসিনা নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন। বিস্তারিত…